নওয়াজের বহর থামিয়ে গাড়ি চলল সেনাপ্রধানের

Home Page » বিশ্ব » নওয়াজের বহর থামিয়ে গাড়ি চলল সেনাপ্রধানের
শুক্রবার, ৭ জুন ২০১৩



2013-06-06-16-34-20-51b0ba0c617f3-untitled-8.jpgবঙ্গ-নিউজ ডটকম : পাকিস্তানে গণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঐতিহাসিক ঘটনার পর অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন, দেশটিতে দীর্ঘদিনের সামরিক আধিপত্যের দিন শেষ হয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাটে সে রকম কোনো ইঙ্গিত মিলছে না, অন্তত এখন পর্যন্ত। পাকিস্তানে গণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঐতিহাসিক ঘটনার পর অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন, দেশটিতে দীর্ঘদিনের সামরিক আধিপত্যের দিন শেষ হয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাটে সে রকম কোনো ইঙ্গিত মিলছে না, অন্তত এখন পর্যন্ত।
নতুন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ গত বুধবার শপথগ্রহণ শেষে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে ফেরার পথে রাস্তায় ‘বাস্তবতার’ মুখোমুখি হন। ইসলামাবাদ শহরের মারগালা রোডে কমান্ডোর নির্দেশে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িচালক গাড়ি থামাতে বাধ্য হন। কারণ, সেনাপ্রধান আশফাক পারভেজ কায়ানির গাড়িবহর তখন ওই রাস্তা দিয়েই যাচ্ছিল। নওয়াজ শরিফের গাড়িবহরকে দুই থেকে তিন মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ঘটনাটি কাকতালীয় হলেও তা সামরিক কর্তৃত্বের অপরিবর্তিত অবস্থারই প্রমাণ দেয় বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন, পাকিস্তানে সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী, নাকি সেনাপ্রধান?
সরকারি বিধিবিধান যা-ই হোক না কেন, পাকিস্তানি সেনাপ্রধান বরাবরই দেশটির যেকোনো নির্বাচিত বা অনির্বাচিত ব্যক্তির চেয়ে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে আসছেন। ক্ষমতাসীন পিএমএল-এন দলের নেতারা নওয়াজের গাড়িবহর থামিয়ে সেনাপ্রধানের গাড়ি চলার ঘটনা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ডন।
পাকিস্তানে গণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঐতিহাসিক ঘটনার পর অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন, দেশটিতে দীর্ঘদিনের সামরিক আধিপত্যের দিন শেষ হয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাটে সে রকম কোনো ইঙ্গিত মিলছে না, অন্তত এখন পর্যন্ত। পাকিস্তানে গণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঐতিহাসিক ঘটনার পর অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন, দেশটিতে দীর্ঘদিনের সামরিক আধিপত্যের দিন শেষ হয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাটে সে রকম কোনো ইঙ্গিত মিলছে না, অন্তত এখন পর্যন্ত।পাকিস্তানে গণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঐতিহাসিক ঘটনার পর অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন, দেশটিতে দীর্ঘদিনের সামরিক আধিপত্যের দিন শেষ হয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাটে সে রকম কোনো ইঙ্গিত মিলছে না, অন্তত এখন পর্যন্ত।
নতুন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ গত বুধবার শপথগ্রহণ শেষে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে ফেরার পথে রাস্তায় ‘বাস্তবতার’ মুখোমুখি হন। ইসলামাবাদ শহরের মারগালা রোডে কমান্ডোর নির্দেশে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িচালক গাড়ি থামাতে বাধ্য হন। কারণ, সেনাপ্রধান আশফাক পারভেজ কায়ানির গাড়িবহর তখন ওই রাস্তা দিয়েই যাচ্ছিল। নওয়াজ শরিফের গাড়িবহরকে দুই থেকে তিন মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ঘটনাটি কাকতালীয় হলেও তা সামরিক কর্তৃত্বের অপরিবর্তিত অবস্থারই প্রমাণ দেয় বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন, পাকিস্তানে সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী, নাকি সেনাপ্রধান?
সরকারি বিধিবিধান যা-ই হোক না কেন, পাকিস্তানি সেনাপ্রধান বরাবরই দেশটির যেকোনো নির্বাচিত বা অনির্বাচিত ব্যক্তির চেয়ে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে আসছেন। ক্ষমতাসীন পিএমএল-এন দলের নেতারা নওয়াজের গাড়িবহর থামিয়ে সেনাপ্রধানের গাড়ি চলার ঘটনা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ডন।

নতুন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ গত বুধবার শপথগ্রহণ শেষে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে ফেরার পথে রাস্তায় ‘বাস্তবতার’ মুখোমুখি হন। ইসলামাবাদ শহরের মারগালা রোডে কমান্ডোর নির্দেশে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িচালক গাড়ি থামাতে বাধ্য হন। কারণ, সেনাপ্রধান আশফাক পারভেজ কায়ানির গাড়িবহর তখন ওই রাস্তা দিয়েই যাচ্ছিল। নওয়াজ শরিফের গাড়িবহরকে দুই থেকে তিন মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ঘটনাটি কাকতালীয় হলেও তা সামরিক কর্তৃত্বের অপরিবর্তিত অবস্থারই প্রমাণ দেয় বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন, পাকিস্তানে সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী, নাকি সেনাপ্রধান?
সরকারি বিধিবিধান যা-ই হোক না কেন, পাকিস্তানি সেনাপ্রধান বরাবরই দেশটির যেকোনো নির্বাচিত বা অনির্বাচিত ব্যক্তির চেয়ে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে আসছেন। ক্ষমতাসীন পিএমএল-এন দলের নেতারা নওয়াজের গাড়িবহর থামিয়ে সেনাপ্রধানের গাড়ি চলার ঘটনা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ডন।

নতুন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ গত বুধবার শপথগ্রহণ শেষে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে ফেরার পথে রাস্তায় ‘বাস্তবতার’ মুখোমুখি হন। ইসলামাবাদ শহরের মারগালা রোডে কমান্ডোর নির্দেশে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িচালক গাড়ি থামাতে বাধ্য হন। কারণ, সেনাপ্রধান আশফাক পারভেজ কায়ানির গাড়িবহর তখন ওই রাস্তা দিয়েই যাচ্ছিল। নওয়াজ শরিফের গাড়িবহরকে দুই থেকে তিন মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ঘটনাটি কাকতালীয় হলেও তা সামরিক কর্তৃত্বের অপরিবর্তিত অবস্থারই প্রমাণ দেয় বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন, পাকিস্তানে সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী, নাকি সেনাপ্রধান?
সরকারি বিধিবিধান যা-ই হোক না কেন, পাকিস্তানি সেনাপ্রধান বরাবরই দেশটির যেকোনো নির্বাচিত বা অনির্বাচিত ব্যক্তির চেয়ে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে আসছেন। ক্ষমতাসীন পিএমএল-এন দলের নেতারা নওয়াজের গাড়িবহর থামিয়ে সেনাপ্রধানের গাড়ি চলার ঘটনা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ডন।পাকিস্তানে গণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঐতিহাসিক ঘটনার পর অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন, দেশটিতে দীর্ঘদিনের সামরিক আধিপত্যের দিন শেষ হয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাটে সে রকম কোনো ইঙ্গিত মিলছে না, অন্তত এখন পর্যন্ত।
নতুন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ গত বুধবার শপথগ্রহণ শেষে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে ফেরার পথে রাস্তায় ‘বাস্তবতার’ মুখোমুখি হন। ইসলামাবাদ শহরের মারগালা রোডে কমান্ডোর নির্দেশে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িচালক গাড়ি থামাতে বাধ্য হন। কারণ, সেনাপ্রধান আশফাক পারভেজ কায়ানির গাড়িবহর তখন ওই রাস্তা দিয়েই যাচ্ছিল। নওয়াজ শরিফের গাড়িবহরকে দুই থেকে তিন মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ঘটনাটি কাকতালীয় হলেও তা সামরিক কর্তৃত্বের অপরিবর্তিত অবস্থারই প্রমাণ দেয় বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন, পাকিস্তানে সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী, নাকি সেনাপ্রধান?
সরকারি বিধিবিধান যা-ই হোক না কেন, পাকিস্তানি সেনাপ্রধান বরাবরই দেশটির যেকোনো নির্বাচিত বা অনির্বাচিত ব্যক্তির চেয়ে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে আসছেন। ক্ষমতাসীন পিএমএল-এন দলের নেতারা নওয়াজের গাড়িবহর থামিয়ে সেনাপ্রধানের গাড়ি চলার ঘটনা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ডন।

নতুন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ গত বুধবার শপথগ্রহণ শেষে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে ফেরার পথে রাস্তায় ‘বাস্তবতার’ মুখোমুখি হন। ইসলামাবাদ শহরের মারগালা রোডে কমান্ডোর নির্দেশে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িচালক গাড়ি থামাতে বাধ্য হন। কারণ, সেনাপ্রধান আশফাক পারভেজ কায়ানির গাড়িবহর তখন ওই রাস্তা দিয়েই যাচ্ছিল। নওয়াজ শরিফের গাড়িবহরকে দুই থেকে তিন মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ঘটনাটি কাকতালীয় হলেও তা সামরিক কর্তৃত্বের অপরিবর্তিত অবস্থারই প্রমাণ দেয় বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন, পাকিস্তানে সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী, নাকি সেনাপ্রধান?
সরকারি বিধিবিধান যা-ই হোক না কেন, পাকিস্তানি সেনাপ্রধান বরাবরই দেশটির যেকোনো নির্বাচিত বা অনির্বাচিত ব্যক্তির চেয়ে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে আসছেন। ক্ষমতাসীন পিএমএল-এন দলের নেতারা নওয়াজের গাড়িবহর থামিয়ে সেনাপ্রধানের গাড়ি চলার ঘটনা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ডন।
পাকিস্তানে গণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঐতিহাসিক ঘটনার পর অনেকেই বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন, দেশটিতে দীর্ঘদিনের সামরিক আধিপত্যের দিন শেষ হয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাটে সে রকম কোনো ইঙ্গিত মিলছে না, অন্তত এখন পর্যন্ত।
নতুন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ গত বুধবার শপথগ্রহণ শেষে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে ফেরার পথে রাস্তায় ‘বাস্তবতার’ মুখোমুখি হন। ইসলামাবাদ শহরের মারগালা রোডে কমান্ডোর নির্দেশে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িচালক গাড়ি থামাতে বাধ্য হন। কারণ, সেনাপ্রধান আশফাক পারভেজ কায়ানির গাড়িবহর তখন ওই রাস্তা দিয়েই যাচ্ছিল। নওয়াজ শরিফের গাড়িবহরকে দুই থেকে তিন মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। ঘটনাটি কাকতালীয় হলেও তা সামরিক কর্তৃত্বের অপরিবর্তিত অবস্থারই প্রমাণ দেয় বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকেই প্রশ্ন করছেন, পাকিস্তানে সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী, নাকি সেনাপ্রধান?
সরকারি বিধিবিধান যা-ই হোক না কেন, পাকিস্তানি সেনাপ্রধান বরাবরই দেশটির যেকোনো নির্বাচিত বা অনির্বাচিত ব্যক্তির চেয়ে বেশি ক্ষমতা ভোগ করে আসছেন। ক্ষমতাসীন পিএমএল-এন দলের নেতারা নওয়াজের গাড়িবহর থামিয়ে সেনাপ্রধানের গাড়ি চলার ঘটনা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ডন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮:০৭:০৮   ২৯৯ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

বিশ্ব’র আরও খবর


এন’গলো কান্তে হলো চেলসিয়ের ইঞ্জিন
করোনা মহামারির পর এবার মাঙ্কিপক্স !
ই-কমার্সের উন্নয়নে সিঙ্গাপুর পাশে থাকবে
ইউক্রেনকে ইসরায়েলের হেলমেট ও ভেস্ট সরবরাহ
নেপাল-ভারতের বিভিন্ন বিষয়ে ছয়টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর
পুতিনকে উৎখাতের জন্য রাশিয়ায় একটি অভ্যুত্থান: ইউক্রেন
আফগান মেয়েদের পড়াতে ইরানে প্রেরন !
‘বুদ্ধ পূর্ণিমা’ আজ
নিউইয়র্কে বাফেলো শহরে বন্দুকধারীর গুলিতে ১০ জন নিহত
প্রেসিডেন্টের পদত্যাগের দাবিতে শ্রীলঙ্কায় বিক্ষোভ চলমান

আর্কাইভ

16. HOMEPAGE - Archive Bottom Advertisement