সবার অজান্তে মৃত্যু ?

Home Page » মুক্তমত » সবার অজান্তে মৃত্যু ?
বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩



কাম্রুল হাসানঃ জাহাঙ্গীরনগরের জিওলজির ৩২তম ব্যাচের আব্দুল্লাহ আল মামুন মারা গেছে ১০ ফেব্রুয়ারী। আর তার বন্ধুরা তা জানতে পেরেছে গত কয়েকদিন আগে। গতকাল তার বন্ধুরা (তৌহিদ, রাসেল, জাকির) মামুনের গাজিপুরের বাড়িতে গিয়ে তার কবর জিয়ারত করে এসেছে। মামুনের মৃত্যু ও স্বাভাবিক পৃথিবী থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার নেপথ্যে এক করুন অধ্যায় লুকায়িত।।
মামুন স্টোমাক ক্যান্সারের আক্রান্ত হওয়ার পর, সে তার মোবাইল ও সিম নষ্ট করে ফেলে। তার বাবা মা ও আপনজনদেরকে বন্ধুবান্ধবদের তার ক্যান্সারের আক্রান্ত হওয়ার খবর না দেয়ার জন্য দিব্যি দেয়।
ইন্ডিয়াতে চিকিৎসা নেয়ার সময় তার ৫টি ক্যামো দেয়া হয়েছিল। কিন্তু উন্নতি না হওয়ায় ডাক্তাররা তাকে দুইমাসের সময় বেধে দেয়। মামুনসহ তার বাবা মা দেশে ফিরে আসে। দেশে ফিরে আসার পর থেকেই মামুনের পৃথিবী বদলে যেতে থাকে। বড়দের সাথে মিশতোনা, ছোট ছোট বাচ্চাদের সাথে খেলা করতো আর বলতো, তার ক্যান্সার হয়েছে, সে মারা যাবে। অবশেষে ঢাকা মেডিক্যালে সে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করে গেল ফেব্রুয়ারীর ১০ তারিখ।
মামুন, আমার রুম মেট ছিল। আমরা এক সাথে প্রায় দুই বছর আলবেরুনি হলের ৩১২ নম্বর রুমে ছিলাম। তার সাথে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক ছিল সিনিয়র ভাই কাম ফ্রেন্ড। কতবার সে আমাদের সাভারের মিষ্টি খাইয়েছে, যখনই মিষ্টি খাওয়ার মন চাইতো, তখনই মামুনকে বলতাম, মামুন মিষ্টি খাওয়া, আর ও সাভারে একটা টিউশনি করাতো, টিউশনি থেকে ফেরার পথে দুইটা মিষ্টি হলেও নিয়ে আসতো।মামুন রোগশয্যায় মোবাইল-সিম নষ্ট করে ফেলেছিল। সাম্প্রতিক সময়ে তার এক কাজিন সে নষ্ট মোবাইল ঠিক করে মামুনের বাড়ির একটা পুরোনো সিম মো্বাইল সংযোজন করে, তার বাড়ির সে পুরোনো নম্বরটি ” মামুনের বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বন্ধুর কাছে ছিল” যেহেতু দীর্ঘদিন মামুনের সাথে তার বন্ধুটির যোগাযোগ নেই, তাই কৌতুহল বশত পুরোনো সিমে ফোন দিলে মামুনের মৃত্যুর কথা জানতে পারে। পরে বিষয়টি ওভার কনফার্ম হওয়ার জন্য সে লোকের কাছ থেকে মামুনের ভাই ও বাড়িতে ফোন দিয়ে খবরের সত্যতা পাওয়া যায়। কাল তৌহিদ, রাসেল, জাকির মামুনের বাড়িতে গিয়েছে, তার কবর জিয়ারত করেছে, মামুনের মা’র সাথে কথা বলেছে।

মামুনের মৃত্যুর খবর আমাকে কতোটা ব্যাতিত করেছে তা অপ্রকাশ্য। কারন সে আমার রুমমেট ছিল। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের রুমমেটরা রুমমেট না তারা এক একজন সহোদর।।

মৃত্যুর ওপর কারো হাত নেই। তবুও কোন কোন মৃত্যু খুব বেশি দাগ কেটে যায়।।

বাংলাদেশ সময়: ১১:৪০:০৬   ২৩৮ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

মুক্তমত’র আরও খবর


স্ত্রীকে তালাক দিয়ে ২ মণ জিলাপি বিতরণ
চায়ের দোকানে ভিড় ফ্রি ওয়াই–ফাই সুবিধায়
সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে
কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে কোরআন পাওয়ার জের ধরে সহিংসতা
দেশের ৩০টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান গোয়েন্দা নজরদারিতে
সমীক্ষার তথ্য মতে দেশের-কুড়িগ্রামে বেশি গরিব,নারায়ণগঞ্জে কম
জীবনে সুস্থ থাকার জন্য খাবার কত বার চিবিয়ে খাওয়া উচিত?
কাতারের দোহায় বসছে তালেবান এবং যুক্তরাষ্ট্র
নালায় পড়ে যাওয়া ভার্সিটর ছাত্রীর লাশ উদ্ধার
অনার্সে পড়ুয়া ছেলের দায়ের কোপে বাবা খুন

আর্কাইভ

16. HOMEPAGE - Archive Bottom Advertisement