চায়ের দোকানে ভিড় ফ্রি ওয়াই–ফাই সুবিধায়

Home Page » মুক্তমত » চায়ের দোকানে ভিড় ফ্রি ওয়াই–ফাই সুবিধায়
বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১



যশোরের কেশবপুর উপজেলার পাঁজিয়ায় বাপ্পি দেবনাথের চায়ের দোকানে আছে ফ্রি ওয়াইফাই

বঙ্গনিউজঃ  যশোরের কেশবপুর উপজেলার পাঁজিয়া বাজারে আছে একটি চায়ের দোকান। নাম ‘মায়ের আঁচল কফি হাউস’। দোকানটি চালান বাপ্পি দেবনাথ (২৮) নামের একজন। এ দোকানে এক কাপ চা পানে মিলে ফ্রি ওয়াই–ফাই। তাই বেশ ভিড় জমে চায়ের এ দোকানে।

সম্প্রতি দোকানে গিয়ে দেখা হয় ৬২ বছরের একজন গাড়িচালক নিযাম উদ্দীনের সঙ্গে। তিনি চা–দোকানের ওয়াই–ফাই ব্যবহার করে গান শুনছিলেন। তিনি বলেন, ‘পুরানো দিনের গান আমার বেশি পছন্দ। বিশেষ করে সাবিনা ইয়াসমিন, আব্বাসউদ্দীন, ফেরদৌসী রহমান, মোহাম্মদ রফি, সামসাদ বেগমের গান শুনি। পুরানো দিনের সিনেমাও দেখি।’

বাপ্পি দেবনাথ বলেন, তিনি কুষ্টিয়ায় একটি বেসরকারি কোম্পানির নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। করোনাকালে তিনি কাজ হারান। উপায় না দেখে নিজের গ্রাম পাঁজিয়ায় ফিরে এসে বাড়ির সামনে একটি চা-কফির দোকান দেন। বাজার থেকে একটু দূরে হওয়ায় প্রথমে দোকানটি ভালো চলত না। দোকানটি চালানোর জন্য তিনি ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট লাইন নেন। দোকানে ওয়াই–ফাই সুবিধা চালু করেন। ঘোষণা দেন, দোকানে বসে চা-কফি পান করে ওয়াই–ফাইয়ের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন যে কেউ। এরপর জমে উঠে দোকানটি।

বাপ্পি দেবনাথের দোকানের ভোক্তাদের বেশির ভাগ কর্মজীবী তরুণ-যুবক। তাঁরা দোকানে চা-কফি পান করেন আর গান শুনে বা সিনেমা দেখে সময় কাটান। এমন একজন ভোক্তা ডালিম বিশ্বাস। তিনি মাছের ঘেরের ব্যবসায়ী। তিনি বলেন, বাপ্পির দোকানে তিনি নিয়মিত চা পান করেন। এ সময়ে দোকানের ওয়াই–ফাই সুবিধা নিয়ে তিনি গান শোনেন, সিনেমা দেখেন। আসাদুল ইসলাম নামের এক ভাঙারি ব্যবসায়ী বলেন, অবসর সময়ে তিনি এখানে চা পান করতে আসেন। আর ব্যবহার করেন ফেসবুক।

দোকানের মালিক বাপ্পি দেবনাথ বলেন, স্কুল চলার সময় কোনো শিক্ষার্থী তাঁর দোকানে ঢুকতে পারবে না, এটা স্পষ্ট করে বলে দেওয়া আছে। এ ব্যাপারে তিনি খুবই কঠোর। স্কুলের পোশাক পরা কাউকে দোকানে ঢুকতে দেওয়া হয় না। চা-কফির বিক্রি বাড়াতে এমন ভাবনা কীভাবে মাথায় এল, জানতে চাইলে তিনি বলেন, এলাকার চা–দোকানে বিনোদনের জন্য টেলিভিশন দেখানো হয়। আবার ক্যারম বোর্ডের ব্যবস্থা আছে। এতে দোকানের পরিবেশ নষ্ট হয়। গন্ডগোল-ঝামেলা হয়। কিন্তু ইন্টারনেট ব্যবহার করলে দোকানে কোনো কথা হয় না। সবাই চা-কফি পান করতে করতে নিঃশব্দে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন।

দোকানে বসে পাঁজিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক উজ্জ্বল ব্যানার্জি বলেন, আধুনিক প্রযুক্তির সঙ্গে এখন প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষ পরিচিত। এর কল্যাণে সমাজে ইতিবাচক পরিবর্তনও হচ্ছে। এই দোকানে ওয়াই–ফাই সুবিধার সঙ্গে শিক্ষামূলক বিষয় যুক্ত করতে পারলে ভালো হবে। বাপ্পিও এর সঙ্গে একমত হয়ে শিক্ষাসংশ্লিষ্ট কিছু ওয়েবসাইটের ঠিকানা দেওয়ার অনুরোধ জানান। সেটা দোকানে টাঙিয়ে রাখবেন বলে বাপ্পি জানান।

বাংলাদেশ সময়: ৯:৫৮:৪৬   ২০৭ বার পঠিত   #  #  #  #  #  #  #




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

মুক্তমত’র আরও খবর


ঐতিহাসিক ৬ দফা ছিল বাঙালির মুক্তির সনদ: প্রধানমন্ত্রী
শনিবার দেশে আনা হচ্ছে আব্দুল গাফফার চৌধুরীর লাশ
জাতীয় কবি কাজী নজরুলের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী
কবিগুরুর জন্মদিন ( জীবনীসহ ভিডিও )
মা দিবসে কবি সেলিনা শিউলির কবিতা “মাগো”
জাতিসংঘের সামাজিক উন্নয়ন কমিশনের সদস্য নির্বাচিত হলো বাংলাদেশ
রমজানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নতুন সময়সূচি ঘোষণা
একজন মানবিক পুলিশ অফিসার নির্মল চন্দ্র দেব
কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে থাকবে ছয় স্তরের নিরাপত্তা
স্ত্রীকে তালাক দিয়ে ২ মণ জিলাপি বিতরণ

আর্কাইভ

16. HOMEPAGE - Archive Bottom Advertisement