বেনজীরের আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের প্রমাণ পাওয়া গেছে

Home Page » জাতীয় » বেনজীরের আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের প্রমাণ পাওয়া গেছে
বৃহস্পতিবার ● ১৩ জুন ২০২৪


 সাবেক আইজিপি বেনজির আহমেদ

বঙ্গ-নিউজ: সাবেক পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ এবং তার পরিবারের সদস্যদের আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। তিনি আজ বলেছেন, ‘বেনজীরের দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া গেছে। এখন দুদক যদি যথাযথ মনে করে তাহলে মামলা করা হবে।’

দুদক বেনজীর এবং তার স্ত্রী ও তিন মেয়ের নামে ঢাকায় ১২টি ফ্ল্যাটের তথ্য পেয়েছে। এর মধ্যে চারটি ফ্ল্যাট রাজধানীর অভিজাত গুলশান এলাকায়, ছয়টি আদাবরের একটি ভবনে এবং দুটি বাণিজ্যিক স্পেস (ফ্ল্যাট) বাড্ডায় অবস্থিত।

এছাড়াও, দুর্নীতি দমন কমিশন সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ এবং তার পরিবারের সদস্যদের আরও ২৫ একর (৭৬ বিঘা) জমি খুঁজে পেয়েছে। সর্বমোট, দুদক বিভিন্ন জেলায় পরিবারটির ৬৯৭ বিঘা জমির তথ্য পেয়েছে।

দুদকের করা এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে, ঢাকার একজন জ্যেষ্ঠ বিশেষ মহানগর দায়রা জজ আশ শামস জাগলুল হোসেন বুধবার তাদের নতুন আবিষ্কৃত আটটি ফ্ল্যাট, বেসরকারি ‘সিটিজেন টেলিভিশন’ এবং পোশাক কোম্পানি ‘টাইগার ক্র্যাফট অ্যাপারেলস লিমিটেড’-এর শেয়ার জব্দ করার নির্দেশ দেন।

এর আগে, একই আদালত গোপালগঞ্জ ও মাদারীপুরে ৬২১ বিঘা জমি, ১৯টি কোম্পানির শেয়ার এবং রাজধানীর অভিজাত গুলশান এলাকায় চারটি ফ্ল্যাট জব্দ করার নির্দেশ দেয়, যা সবই সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ এবং তার পরিবারের সদস্যদের।

আদালত ৩০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র, বিভিন্ন ব্যাংকে ৩৩টি হিসাব এবং তিনটি বিও (বেনিফিশিয়ারি ওনার) অ্যাকাউন্ট জব্দের নির্দেশও দেন।

অবৈধভাবে অর্জিত সম্পদের সন্ধানের মধ্যেই, বেনজীর আহমেদ এবং তার পরিবার ৪ মে দেশ ছেড়ে চলে যান।

বেনজীর ১৫ এপ্রিল ২০২০ থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশের আইজিপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এর আগে, তিনি ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের মহাপরিচালক হিসেবে নিযুক্ত হন এবং এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ২০:৪২:১৫ ● ৬০ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ