বগুড়ায় ফুল চাষে ভাগ্য গড়ছেন অনেকেই, গড়ে উঠেছে মার্কেট

Home Page » ফিচার » বগুড়ায় ফুল চাষে ভাগ্য গড়ছেন অনেকেই, গড়ে উঠেছে মার্কেট
মঙ্গলবার, ১১ জানুয়ারী ২০২২



বগুড়ার ফুলের দোকন

বঙ্গনিউজঃ  বগুড়ায় কৃষিতে নতুন সংযোজন হয়েছে ফুল। ফুল চাষ করে লাভবান হওয়ার পর থেকে বগুড়ায় ফুল চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে। বগুড়ার বিভিন্ন উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে ফুল চাষ শুরু হয়েছে। বগুড়ায় চাষকৃত ফুল দিয়ে অর্ধেক চাহিদা পূরণ হচ্ছে। এতে স্থানীয় চাষিদের পাশাপাশি ক্রেতা ও বিক্রেতা হচ্ছে লাভবান। জেলার সোনাতলা উপজেলায় ৫টি গ্রামে বাণিজ্যিকভাবে ফুল চাষ হচ্ছে। ফুল চাষে দিয়ে নিজেদের সংসার পরিচালনা করছেন অনেকেই।

জানা যায়, বগুড়া সদরের মহাস্থানগড় এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে ফুল গাছের চাষ শুরু হয়। সে ফুল গাছ শহরের বিভিন্ন এলাকায় ফেরি করে বিক্রি শুরু হয়। নব্বই দশকে বগুড়া শহরের খোকন পার্কের সামনে স্থানীয় কিছু ব্যবসায়ী গোলাপ ফুল বিক্রি শুরু করে। বিভিন্ন উৎসবকে কেন্দ্র করে এই ফুলের চাহিদা দিন দিন বাড়তে থাকে। পরে চাহিদার দিকে খেয়াল রেখে বগুড়া পৌরসভা থেকে ওই এলাকায় ১৭টি দোকান করে দেয়। ফুল মার্কেট এর দোকান ব্যবসায়ীরা ভাড়া নিয়ে বিভিন্ন রকমের ফুল কেনাবেচা করে আসছে।

এই ফুল ব্যবসায়ীরা যশোর থেকে কুরিয়ার সার্ভিস ও বাসে করে নিয়ে বগুড়ায় ফুল বিক্রি শুরু করে। ২০০০ সালের দিকে এসে ফুলের চাহিদা দ্বিগুণ হয়ে যায়। তখন মহাস্থানগড়, শিবগঞ্জ, গাবতলী, সোনাতলা উপজেলায় গোলাপ ও গাদা ফুল চাষ শুরু হয়। স্থানীয় ফুল দিয়ে চাহিদা পূরণ হতে থাকে। ফুল পরিবহনে খরচ কম এবং লাভ বেশি হওয়ার কারণে ফুল ব্যবসায়ীরা বগুড়ায় চাষ করা ফুল বিক্রি শুরু করে।
পর্যায়ক্রমে ফুল চাষিরা গোলাপ, গাদা, ভুট্টা, গ্ল্যাডিয়া, রজনী দেশি ও হাইব্রিড, কামিনি, ফুল সঙ্গে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের পাতারও চাষ শুরু করে দেয়। বগুড়ায় বাণিজ্যিকভাবে ফুল চাষে এগিয়ে আছে সোনাতলা উপজেলা। সোনাতলা উপজেলার ফুল চাষ করে নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করেছেন শতাধিক যুবক। যুবকদের এখন প্রধান পেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে ফুল চাষ। কৃষি কাজের সঙ্গে ফুল চাষ করেই এখন অনেকের সংসার চলছে।
সোনাতলা উপজেলা যমুনা ও বাঙালি নদীর তীরে অবস্থিত। নদী প্রতিবছর ভাঙছে। নদী যেমন ভাঙে ঠিক তেমনি বাড়ে সর্বস্বান্ত মানুষের সংখ্যা। এই মানুষগুলো নিজেদের টিকিয়ে রাখতে জড়িয়ে পড়ছে কৃষি কাজের সঙ্গে। কৃষিতে তারা ফুল চাষ শুরু করেছে। ফুল চাষ করেই এখন তারা নিজেদের ভাগ্য বদল করে ফেলেছে।

সোনাতলা উপজেলার কামারপাড়া, চামুরপাড়া, সুজায়েতপুর, রাখালগাছি, বড়বালুয়া গ্রামে ব্যাপক আকারে ফুল চাষ হচ্ছে। এ ৫টি গ্রামের বেশিরভাগ মানুষ ফুল চাষ করছে। এ গ্রামের মানুষগুলো ফুল চাষের মাধ্যমে সংসারে সচ্ছলতা নিয়ে এসেছে। উপজেলার চমরগাছা গ্রামের মোকলেছার রহমান জানান, ফুল চাষ করে বেশি লাভবান হওয়া যায়। এ কারণে ফুল চাষ করা হচ্ছে। ৫০ শতক জমিতে এবার ফুলের চাষ করেছেন। তার ওই জমি থেকে এবার প্রায় আড়াই লাখ টাকা আয় করবেন বলে তিনি আশাবাদ করছেন।

একই গ্রামের নূরে আলম শিলু তার ২০ শতক জমিতে গ্লাডিওলাস, রজনী গন্ধা ও গাঁদা ফুলের চাষ করেছেন। তিনি আশা করছেন এবার ১ লাখ ২০ হাজার থেকে ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা আয় করবেন। নূরে আলম শিলু জানান, গতবছর ১৪ ও ২১ ফেব্রুয়ারি ২৬ মার্চ, পহেলা বৈশাখের মতো বিশেষ দিনগুলোতে বগুড়ায় একটি গোলাপ পাইকারি বিক্রি হয়েছে ৬ টাকা, গ্লাডিওয়াস ৫ টাকা, রজনীগন্ধা ৪ টাকা থেকে ৬ টাকা করে। সেই গোলাপ খোলা বাজারে বিক্রি হয়েছে ১৫ টাকা থেকে ২৫ টাকা, গ্লাডিওয়াস ১০ থেকে ১৫ টাকা, রজনীগন্ধা ১০ টাকা করে। ফুলের চাহিদা বাড়ায় বগুড়া শহরের খোকন পার্ক এলাকায় ১৭টি দোকান রয়েছে। যা ফুল চাষ হয় তা দিয়ে ফুল মার্কেটের চাহিদা শেষ হয় না। এলাকায় গাঁদা চাষ হচ্ছে প্রচুর পরিমাণে।

সুজাইতপুর গ্রামের শাকিলুজ্জামান তার ৩০ শতক জমিতে গত কয়েক বছর ধরে ফুল চাষ করে আয় শুরু করেছেন। সে আয় দিয়ে নিজের সংসার পরিচালনা করছেন। এছাড়া বামুনিয়া ও নগর পাড়ার অনেক কৃষক ও বেকার যুবক ফুল চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। শালিকুজ্জামান গ্লাডিওয়াস চাষ করেছেন। এবার তিনি পাইকারি প্রতিটি ফুল ৮ টাকা করে বিক্রি করেছেন। গত বছর একুশে ফেব্রুয়ারির আগের দিন জমি থেকে তিনি ৮ হাজার টাকার গ্লাডিওয়াস ফুল বিক্রি করেছেন। এর আগে ১৪ ফেব্রুয়ারি তিনি আরও প্রায় ৬ হাজার টাকার গ্লাডিওয়াস ফুল বিক্রি করেন। জমি চাষ বাবদ তার খরচ হয়েছে ১০ হাজার টাকা।

বগুড়া শহরের ফুল মার্কেটের ফুল বিক্রেতা মোখলেছুর রহমান বাটু জানান, সোনাতলা উপজেলায় যে ফুল চাষ হয় তা দিয়ে স্থানীয়ভাবে ব্যবসায় বেশি লাভ পাওয়া যায়। আগে যশোর থেকে ফুল নিয়ে আসতে হতো। তখন খরচ পড়তো বেশি। এখন বগুড়ায় যে ফুল পাওয়া যায় সে ফুল বিক্রি করে লাভ বেশি পাওয়া যায়।

কৃষি বিভাগ ও কৃষি কর্মকর্তাগণ তাদের পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে ফুল চাষিদের গ্লাডিওলাস, রজনীগন্ধা ও গাঁদা ফুলের চাষের জমি বেশি দেখা গেছে। আবার কিছু কিছু এলাকায় ভ্রাম্যমাণ ফুল বিক্রেতারা বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মূল ফটকে ভ্যান যোগে ফুলের চারা ও ফুল বিক্রি করেন।

ফুলচাষিরা জানান, ফুল চাষে উৎপাদন খরচ কম, লাভ বেশি। তাই দিনদিন সোনাতলা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষকেরা অন্য ফসলের চেয়ে ফুল চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। সোনাতলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মাছুদ আহম্মেদ জানান, এফসিদিপি নামে একটি প্রকল্প থেকে ফুলচাষ শুরু হয় সোনাতলা উপজেলায়। এরপর থেকে উপজেলায় ফুল চাষের সংখ্যা বাড়ছে। বিভিন্ন ধরনের ফুল চাষ হয়ে থাকে।

কৃষি অফিস থেকে ফুল চাষিদের বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতা করা হচ্ছে। কৃষক ফুলের বীজ বপনের ৩ মাসের মধ্যে ফুল বিক্রি করতে পারেন। ফুল চাষে উৎপাদন খরচ কম লাভ বেশি। তাই দিন দিন কৃষকেরা অন্য ফসলের চেয়ে ফুল চাষে ঝুঁকে পড়ছেন। উপজেলা কৃষি বিভাগ থেকে ফুল চাষিদের সকল সহযোগিতা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫:৫২:৪১   ২২৯ বার পঠিত  




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

ফিচার’র আরও খবর


জিনগত ত্রুটির অপর নাম “ডাউন সিনড্রোম”- রুমা আক্তার
মোহাম্মদ শাহ আলমের জীবন ও কর্ম
ইসফাহান নেসফে জাহান
সিলেটে গ্রুপ ফেডারেশনের কর্মশালায় বির্তকিত মুরাদ- আয়োজকদের দুঃখ প্রকাশ
ডলারের দাম যেভাবে বাড়ছে, টাকার দাম কেন কমছে
বাংলাদেশর প্রতিনিধি দল মেঘালয়ে- বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা
সিলিং ফ্যান পরে আহত সাবেক প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান- মাথায় ৩ সেলাই
টাইটানিক রহস্য
পর্যটকদের উপর হামলা- আটক ২
‘৫০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স যোগ করছে ফ্রিল্যান্সারা - বিএফডিএস এর আলোচনা সভায় পরিকল্পনামন্ত্রী

আর্কাইভ

16. HOMEPAGE - Archive Bottom Advertisement