সেন্টমার্টিনে আঘাত হেনেছে মোখা

Home Page » জাতীয় » সেন্টমার্টিনে আঘাত হেনেছে মোখা
রবিবার ● ১৪ মে ২০২৩


ঘুর্ণিঝড় মোখা

বঙ্গ-নিউজ: ১৪৭ কি,মি গতিতে অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় মোখা আছড়ে পড়েছে সেন্টমার্টিন। ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে লন্ডভন্ড দ্বীপটি। বাতাসে উড়ে যাচ্ছে ঘরবাড়ি, হোটেল, মোটেল। ভেঙে পড়ছে গাছপালা, বিদ্যুতের খুঁটি। আজ দুপুরে সেন্টমার্টিনে আঘাত শুরু করে ঘূর্ণিঝড় মোখা।

এখনও প্রচণ্ড বেগে বাতাস হচ্ছে। অনেক ঘরবাড়ি, হোটেল উড়িয়ে নিয়ে গেছে। ছাদ উড়ে যাচ্ছে, গাছ উপড়ে পড়ছে, বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে যাচ্ছে। এদিকে গাছ পড়ে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে । সর্বমোট দুইজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

জানা গেছে বাতাসের গতি ক্রমেই বাড়ছে। বাসা এতো জোরে বইছে যে, বিচের ভেজা মাটি তুলে নিচ্ছে যাচ্ছে। বাড়িঘর-হোটেলের টিন, ছাউনি, কাঠ, বাঁশ উড়িয়ে নিচ্ছে। বড় বড় গাছ দুমড়ে মুচড়ে পড়েছে। দোকানপাট ভেঙে যাচ্ছে। বৃষ্টির পানি ও বাতাসের তীব্রতায় পুরো সেন্টমার্টিন ধোঁয়াশা হয়ে আছে।

ঘূর্ণিঝড় মোখা  ইতোমধ্যেই একবার সুপার সাইক্লোনে পরিণত হয়ে তারপরে আবারও অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড়ে নেমে এসেছে।

ঘূর্ণিঝড় মোখা যখন সেন্টমার্টিন দ্বীপ ও মিয়ানমারের মংডু জেলার ওপর দিয়ে অতিক্রম করা শুরু করেছে তখনই সমুদ্রে ভাটার শুরু হয়েছে। এতে স্থল ভাগে আঘাত করার সময় ঘূর্ণিঝড়টি প্রতিকূল পরিবেশের সম্মুখীন হচ্ছে। তাই সমুদ্রের মধ্যেই দুর্বল হয়ে পড়েছে ঘূর্ণিঝড় মোখা।

এছাড়া বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান বলেছেন, ঘূর্ণিঝড় মোখার মূল অংশ মিয়ানমারের ওপর দিয়ে যাবে। টেকনাফ থেকে ৫০-৬০ কিলোরোববার সকালে এ তথ্য জানান তিনি। আজিজুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ ঝুঁকিমুক্ত হতে চলেছে। মূল ঝুঁকিটা চলে যাচ্ছে মিয়ানমারের দিকে। টেকনাফ, কক্সবাজারসহ বাংলাদেশের অঞ্চলগুলো নিয়ে আমাদের যে ঝুঁকির সম্ভাবনা ছিল, এখন আর ততটা ঝুঁকি নেই।

তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় মোখা মূল আঘাত হানবে দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৩টার মধ্যে। এ সময়ে জলোচ্ছ্বাস হবে। তখন বাতাসের গতি থাকতে পারে ঘণ্টায় ১২০-১৩০ কিলোমিটার পর্যন্ত।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক আরও বলেন, আমরা আশঙ্কা করছি জলোচ্ছ্বাসের মাত্রা যদি ৮ থেকে ১২ ফিট পর্যন্ত হয়, তাহলে টেকনাফ এবং সেন্টমার্টিনে অস্থায়ীভাবে পানির জলাবদ্ধতা থাকবে। তবে পর্যায়ক্রমে তা কেটে যাবে।

বাংলাদেশ সময়: ২০:৪৩:৫৩ ● ১৩০ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ