জাবির প্রাক্তন শিক্ষার্থী অধ্যাপক ড.নূরুল আলম জাবির উপাচার্য হলেন

Home Page » জাতীয় » জাবির প্রাক্তন শিক্ষার্থী অধ্যাপক ড.নূরুল আলম জাবির উপাচার্য হলেন
মঙ্গলবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২



ভিসি, অধ্যাপক ড.নূরুল আলম

জাবি প্রতিনিধি, বঙ্গনিউজঃ  জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯তম উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক ড.  মো. নূরুল আলমকে নিয়োগ দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ। মঙ্গলবার এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়- রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলরের অনুমোদনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ও পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আলমকে আগামী ৪ বছরের জন্য জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য পদে নিয়োগ দেওয়া হলো। এই পদে তিনি বর্তমান পদের সমপরিমাণ বেতন-ভাতাদি পাবেন এবং বিধি অনুযায়ী পদসংশ্লিষ্ট অন্যান্য সুবিধা ভোগ করবেন। এছাড়া তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান কর্মকর্তা হিসেবে সার্বক্ষণিক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অবস্থান করবেন।

এর আগে চলতি বছরের ১ মার্চ অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আলমকে উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। এরপর গত ১৭ এপ্রিল উপাচার্য হিসেবে তাকে সাময়িকভাবে দায়িত্ব প্রদান করা হয়।

গত ১২ আগস্ট ৩ সদস্যদের ভিসি প্যানেল নির্বাচনে নূরুল আলম ৪৬ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হন। আর ৪৮ ভোট পেয়ে প্রথম হয়েছিলেন অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আমির হোসেন। আইন অনুযায়ী ৩ জনের প্যানেল থেকে যে কোনো একজনকে রাষ্ট্রপতি চার বছরের জন্য উপাচার্য নিয়োগ দেন।
তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জাবি উপাচার্য অধ্যাপক অধ্যাপক নূরুল আলম  বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়কে আমি বিশ্বমানের বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই। এজন্য সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা কামনা করছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারিরা যদি আমাকে সহযোগিতা করেন তাহলে এ যাত্রা আমার জন্য সহজ হবে।

অধ্যাপক নূরুল আলম ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে কুশুরা আব্বাস আলী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও মানিকগঞ্জের দেবেন্দ্র কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন। এরপর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ থেকে ১৯৭৬ সালে তিনি স্নাতক (সম্মান) ও ১৯৭৭ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৬ সালে তিনি পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

কর্মজীবনে অধ্যাপক নূরুল আলম ১৯৮০ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগে রিসার্চ ফেলো হিসেবে কাজ করেন। ১৯৮২ সালে তিনি একই বিভাগে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষকতা শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৮৬ সালে তিনি সহকারী অধ্যাপক, ১৯৯২ সালে সহযোগী অধ্যাপক এবং ১৯৯৭ সালে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি লাভ করেন।

অধ্যাপনার পাশাপাশি তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট, সিন্ডিকেট, একাডেমিক কাউন্সিল ও অর্থ কমিটির সদস্য, গাণিতিক ও পদার্থবিষয়ক অনুষদের ডিন, মীর মশাররফ হোসেন হলের প্রভোস্ট, বিভাগীয় সভাপতি, ভারপ্রাপ্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল ও কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন।

এছাড়া তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি ও সভাপতি এবং বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সহ-সভাপতি ও সভাপতি হিসেবেও নেতৃত্ব দিয়েছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৯:৫৮:২১   ১৩৯ বার পঠিত   #  #  #  #  #




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

জাতীয়’র আরও খবর


ইসলামী ব্যাংকে পর্যবেক্ষক নিয়োগ, সরানো নিয়ে প্রশ্ন
ঋণ গ্রহীতাদের নাম ওয়েবসাইটে প্রকাশের নির্দেশ
চেক ডিজঅনার মামলার রায় দুই মাসের জন্য স্থগিত
অসাধারণ জয় ও দ্বিতীয় রাউন্ডে আর্জেন্টিনা
ষাটোর্ধ্ব মানুষ আগে পাবেন করোনার টিকার চতুর্থ ডোজ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
১ মাস সময় বাড়ল আয়কর রিটার্ন দাখিলের
প্রকাশ হলো ৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি , পদসংখ্যা ২৩০৯
সোহরাওয়ার্দীতে যে ২৬ শর্তে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি প্রদান
এস এস সি পাশের হার কমছে বেড়েছে জিপিএ-৫
রওশনের সংবাদ সম্মেলন, ‘বিএনপির সঙ্গে জোট নয়’

আর্কাইভ

16. HOMEPAGE - Archive Bottom Advertisement