রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানার ওসি (তদন্ত) মো:নূর আলম মাসুম সিদ্দিকী এর নেতৃত্বে লায়লাকে ধ-র্ষ-ণ মামলায় টিকটকার মামুন গ্রেপ্তার।

Home Page » প্রথমপাতা » রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানার ওসি (তদন্ত) মো:নূর আলম মাসুম সিদ্দিকী এর নেতৃত্বে লায়লাকে ধ-র্ষ-ণ মামলায় টিকটকার মামুন গ্রেপ্তার।
বুধবার ● ১২ জুন ২০২৪


টিকটকার প্রিন্স মামুন

বঙ্গনিউজঃ লায়লা আক্তার ফারহাদের (৪৮) ধর্ষণ মামলায় আলোচিত কন্টেন্ট ক্রিয়েটর ও টিকটকার প্রিন্স মামুনকে (২৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার (১০ জুন) রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানার ওসি (তদন্ত) মো:নূর আলম মাসুম সিদ্দিকী বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানাএলাকায় বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করা হয়। প্রিন্স মামুনের বিরুদ্ধে ক্যান্টনমেন্ট থানায় ধর্ষণ মামলা রয়েছে।
এর আগে টিকটকার লায়লাকে বিয়ের প্রলোভনে রবিবার (৯ জুন) প্রিন্স মামুনের বিরুদ্ধে রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা করেন লায়লা। মামলা নং০৫;তারিখ ০৯/০৬/২৪; ধারা:- নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন এর ৯(১)।
অভিযোগে লায়লা উল্লেখ করেন, মামলার বিবাদী আব্দুল্লাহ আল মামুন ওরফে প্রিন্স মামুনের সঙ্গে আমার গত তিন বছর আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয়। পরিচয়ের একপর্যায়ে মামুন আমাকে বিয়ে করবে মর্মে প্রলোভন দেখিয়ে আমার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক স্থাপন করে। সে আমাকে জানায়, তার ঢাকায় থাকার মতো নিজস্ব কোনো বাসা নেই। যেহেতু প্রেমের সম্পর্ক সৃষ্টি হয় এবং মামুন আমাকে বিয়ে করবে বলে জানায়, তাই তার কথা সরল মনে বিশ্বাস করে তাকে আমার বাসায় থাকার অনুমতি দিই।
২০২২ সালের ৭ জানুয়ারি মামুন তার মাকে সঙ্গে নিয়ে আমার বাসায় এসে বসবাস করতে থাকে। ওইদিন থেকে সে আমার বাসায় আমার সঙ্গে একই রুমে থাকতে শুরু করে। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার শারীরিক সর্ম্পক করে। মামুন আমার বাসায় থাকাকালে তার বাবা-মা মাঝেমধ্যেই সেখানে এসে অবস্থান করতো। আমি মামুনকে একাধিকবার বিয়ের বিষয় বললে সে বিভিন্ন অজুহাতে সময়ক্ষেপণ করতে থাকে।
লায়লা ক্যান্টনমেন্ট থানায় তাকে বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে একাদিকবার তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়েছে এ মর্মে অভিযোগ জানিয়ে ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। তারই প্রেক্ষিতে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় মামুনের অবস্থা নির্ণয় করিয়া কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করিয়া তাকে গ্রেপ্তার করে ক্যান্টনমেন্ট থানা পুলিশ।

আজ মঙ্গলবার (১১ জুন) ক্যান্টনমেন্ট থানা পুলিশ গ্রেফতারকৃত আসামি প্রিন্স মামুনকে ০৭(সাত) দিনের পুলিশ রিমান্ড চেয়ে বিজ্ঞ সি.এম.এম. আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। বিজ্ঞ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশীদ আসামীর রিমান্ড ও জামিন উভয়ই নামঞ্জুর করে আসামীকে জেল-হাজতে পাঠিয়েছেন। আদালতে আসামীপক্ষে মামলাটি শুনানি করেন এডভোকেট কামরুন নাহার লিজা। বিজ্ঞ আইনজীবী জানান একটি অসম সম্পর্কে ফাটল ধরার কারণে বাদী আসামীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মতো গুরুতর একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় আসামীর বিরুদ্ধে এখনো অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা না পাওয়ায় বিজ্ঞ আদালত রিমান্ডের আবেদন নামঞ্জুর করেছেন। মামলায় পরবর্তী তদন্ত কার্যক্রম পর্যালোচনা করে আসামীর জামিন চাওয়া হবে। উল্লেখ্য যে, একই বাদীর দায়ের করা ক্যান্টনমেন্ট থানার আরেকটি মামলায় গত ৪জুন স.এম.এম আদালত হতে জামিন পেয়েছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫:১২:০৪ ● ১৭৮ বার পঠিত




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

আর্কাইভ