প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আদ্যোপান্ত - অন্তিম পর্ব

Home Page » ইতিহাস » প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আদ্যোপান্ত - অন্তিম পর্ব
বুধবার, ২৩ মার্চ ২০২২



 প্রথম বিশ্বযুদ্ধ

( দ্বিতীয় পর্বের পর…….)

জাতিতে জাতিতে বা দেশে দেশে যত গুলো যুদ্ধ হয়েছিল তারমধ্যে ১ম বিশ্বযুদ্ধ ছিল মানুষের ইতিহাসে সর্বাপেক্ষা রক্তক্ষয়ী ও ধ্বংসাত্মক যুদ্ধ গুলোর একটি, যার স্মৃতি দুঃস্বপ্নের ও হৃদয়বিদারক। নবজাতক থেকে শুরু করে বৃদ্ধ পর্যন্ত সকলের উপর প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে আঘাত করেছিলো। ১ম বিশ্বযুদ্ধের পর বিশ্বের রাজনৈতিক মানচিত্রে বড় ধরণের পরিবর্তন আসে। পুরাতন রাজনৈতিক শক্তির পতনের সাথে নতুন নতুন রাজনৈতিক শক্তির আবির্ভাব ঘটে। মধ্যপ্রাচ্য ও ভিয়েতনামে ঔপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু হয়। ফলাফল হিসেবে ধীরে ধীরে ঔপনিবেশিক শাসন বন্ধ হতে শুরু করে।

১ম বিশ্বযুদ্ধের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী শিল্প উৎপাদনের চেয়ে মারণাস্ত্র উৎপাদনের প্রতিযোগিতা তৈরি হয়। ব্রিটেনের কাছে ঋণগ্রস্ত থাকা আমেরিকা যুদ্ধাস্ত্র বিক্রি করে বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী ধনী রাষ্ট্রে পরিণত হওয়ার পথে এগিয়ে যায়।

দীর্ঘ ৪ বছর ব্যাপী ব্যয়বহুল এ বিশ্বযুদ্ধে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ছিল অনেক বেশি। প্রায় দেড় কোটি মানুষ নিহত ও ২ কোটি মানুষ আহত হয়। যেখানে ৬ কোটি সৈনিকের মধ্যে ১ কোটি ৩০ লক্ষ সৈনিক মৃত্যুবরণ করে। ৭০ লক্ষ মানুষ চিরতরে পঙ্গুত্ব বরণ করে। ১৮৬ ও ১৫১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে খরচ হয় এ বিশ্বযুদ্ধে।

মূলত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ব্যতীত প্রথম বিশ্বযুদ্ধের চূড়ান্ত ফলাফল যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী কোন রাষ্ট্রের জন্যই কল্যাণ বয়ে আনেনি। আক্ষরিক অর্থে পৃথিবীর ইতিহাস চর্চায় জার্মানিকে পরাজিত দেশ হিসেবেই চিহ্নিত করা হয় এবং শুধুমাত্র জার্মানির উপরেই সকল দায়ভার চাপিয়ে জার্মানিকে কোণঠাসা করে দেয়া হয়।

১ম বিশ্বযুদ্ধের পর বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় প্রথমে প্যারিস সম্মেলন ও পরে ভার্সাই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। জার্মান, অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান, অটোমান ও রোমান সাম্রাজ্যের পতন ঘটিয়ে নতুন রাষ্ট্র ও রাষ্ট্রব্যবস্থার সৃষ্টি করে ১ম বিশ্বযুদ্ধ। যে চুক্তির মাধ্যমে অস্ট্রিয়া, চেক স্লোভাকিয়া, এস্তোনিয়া, হাঙ্গেরি, লাটভিয়া লিথুনিয়া এবং তুরস্ক স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে উঠে।

১ম বিশ্বযুদ্ধের ব্যাপকতাই রাশিয়ার বলশেভিক বিপ্লবের গতি ত্বরান্বিত করে রাশিয়ায় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন বিপ্লব ঘটাতে সক্ষম হন। ১ম বিশ্বযুদ্ধের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মর্যাদা ও প্রভাব পুরো বিশ্বে বৃদ্ধি পায়। কারণ বিশ্বযুদ্ধের ফলে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে নানান অর্থনৈতিক সংকট দেখা যায়। এই অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন দেশকে নানানভাবে আর্থিক সাহায্য সাহায্য দিতে শুরু করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পৃথিবীর সর্ববৃহৎ মহাজনে পরিণত হয়, ফলে বিশ্ব রাজনীতিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রভাব বিস্তার করতে থাকে।

ইউরোপের সংকীর্ণ গণ্ডি অতিক্রম করে গোটা বিশ্বে শান্তি ও নিরাপত্তা অক্ষুণ্ণ রাখার জন্য যে আন্তর্জাতিক সংস্থা গড়ে তোলা অত্যন্ত জরুরী তা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় গভীরভাবে অনুভূত হয়। এ উপলব্ধি থেকেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বিখ্যাত চৌদ্দ দফা শর্তের উপর ভিত্তি করে লীগ অব নেশনস নামক একটি আন্তর্জাতিক রাষ্ট্র সংঘ গড়ে উঠে। এ সংস্থা বিশ্বে শান্তি ও নিরাপত্তা বিধান করা ছাড়াও জনস্বাস্থ্য উন্নয়ন, শিক্ষা-সংস্কৃতির প্রসার, দাস প্রথার অবসান, শ্রমিকের উন্নতি প্রভৃতি নানা জনহিতকর কার্যাবলী লীগ অব নেশনস এর অন্তর্ভুক্ত ছিল।যদিও লীগ অব নেশনস শেষ পর্যন্ত তার পূর্ণ কর্তব্য পালনে ব্যর্থ হয়েছিলো তবুও বিশ্বযুদ্ধ রোধে লীগ অব নেশনস ব্যর্থ হলেও সামাজিক, অর্থনৈতিক ও মানবতার ক্ষেত্রে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করে। লীগ অফ নেশন এর ব্যর্থতার দরুন পৃথিবীবাসীকে দেখতে হয়েছিল আরো একটি রক্তক্ষয়ী বিশ্বযুদ্ধ । তবুও লীগ অফ নেশন প্রশংসার দাবিদার ।

( সমাপ্ত )

সংকলনে: মাসুম আজাদ

বাংলাদেশ সময়: ১৩:৫৩:১৬   ১৩৬ বার পঠিত   #  #  #  #




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

ইতিহাস’র আরও খবর


টাইটানিক রহস্য
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আদ্যোপান্ত - অন্তিম পর্ব
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আদ্যোপান্ত - পর্ব ২
চলনবিলের ইতিকথা
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আদ্যোপান্ত - পর্ব ১
নাইটহুড সম্মান পাওয়া প্রথম পেঙ্গুইন আর্মির ব্রিগেডিয়ার নিলস ওলা‌
ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস
ঐতিহাসিক “ছয় দফা”-বাঙ্গালীর মুক্তির সনদ -নুরুজ্জামান শুভ

আর্কাইভ

16. HOMEPAGE - Archive Bottom Advertisement